চন্দ্রপুর বিশ্ববিদ্যালয় : সহস্রাধিক বছরের পুরোনো পাথরের সন্ধান

প্রকাশিত: ৮:০২ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৬, ২০২০

চন্দ্রপুর বিশ্ববিদ্যালয় : সহস্রাধিক বছরের পুরোনো পাথরের সন্ধান

নিউজ ডেস্ক: জুড়ী উপজেলার সাগরনাল ইউনিয়নের উত্তর সাগরনাল গ্রামের দীঘিরপাড় এলাকায় কথিত চন্দ্রপুর বিশ্ববিদ্যালয় অনুসন্ধানে এসে সহস্রাধিক বছরের পুরনো পাথরের সন্ধান পেয়েছে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের প্রতিনিধি দল।

 

ওই এলাকায় ৯৩৫ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত চন্দ্রপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন অস্তিত্ব ছিল কিনা তা দেখতে রোববার সরেজমিন পরিদর্শনে যান অধিদপ্তরের সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগ নিয়ে গঠিত কুমিল্লা কার্যালয়ের আঞ্চলিক পরিচালক ডা. আতাউর রহমান। এসময় তাঁর সাথে ছিলেন কুমিল্লার মাঠ কর্মকর্তা মো. শাহীন আলম, ময়নামতি জাদুঘরের সহকারী কাস্টোডিয়ান হাফিজুর রহমান, গবেষণা সহকারী ওমর ফারুক রুবেল, সার্ভেয়ার চাইথুয়াই মারমা।

 

পরিদর্শন কালে জুড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল-ইমরান রুহুল ইসলাম, সাগরনাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এমদাদুল ইসলাম চৌধুরীসহ গণমাধ্যমকর্মী ও স্থানীয় বাসিন্দারা উপস্থিত ছিলেন।

 

পরিদর্শক দল দীঘিরপাড় এলাকায় মাটি খুড়ে পুরোনো দিনের মাটির তৈজসপত্রের ধ্বংসাবশেষ ও পুরোনো ইটের টুকরো সংগ্রহ করেন। এসময় স্থানীয় বাসিন্দা জগদিশ শর্মা দীঘির পাড়ের নিজ জমিতে পুকুর খনন করতে গিয়ে ২০০০ ইংরেজি সালে প্রাপ্ত এক ধরণের পাথর (ব্রিডস স্টোন) পরিদর্শক দলকে দেখালে তাঁরা এগুলো অন্তত এক থেকে দেড় হাজার বছরের পুরোনো হতে পারে বলে ধারণা করেন। পরীক্ষার জন্য কয়েকটি পাথর নিয়ে যান তাঁরা।

 

পরিদর্শন শেষে আঞ্চলিক পরিচালক ডা. আতাউর রহমান জানান, পরিদর্শন কালে সংগ্রহ করা বস্তুগুলো পরীক্ষার জন্য ঢাকার প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরে পাঠানো হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামোগত কোন প্রমাণ না মিললেও আমরা ধারণা করছি এখানে প্রাচীন কোন সভ্যতার নিদর্শন আছে।

 

তিনি বলেন, আমরা আমাদের পরিদর্শনের প্রতিবেদন ও সংগ্রহ করা পাথর, ইটের টুকরো এবং তৈজসপত্র পরীক্ষা করার জন্য অধিদপ্তরে পাঠাব। অধিদপ্তর সিদ্বান্ত দিলে আমরা এই স্থানে খনন কাজ চালিয়ে অবকাঠামো অনুসন্ধান করতে পারি।

 

 

জুড়ীনিউজ  টোয়েন্টিফোর ডটকম/এস/ আইআই